মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ভবষ্যিৎ পরকিল্পনা

৫.ভবষ্যিৎ পরকিল্পনা:

সাক্ষরতার হার বৃদ্ধরি জন্য বভিন্নি র্কমসূচি গ্রহণ। উপানুষ্ঠানকি শক্ষিা আইন ২০১৪ এর আলোকে র্বোড গঠন পূর্বক বোর্ডের  পূর্ণ  কার্র্যক্রম চালু করা। শক্ষিার সুযোগ বঞ্চতি জনগোষ্ঠকিে সাক্ষরজ্ঞানদান করা ও নব্যসাক্ষরদরে জীবনব্যাপী শক্ষিার সুযোগ সৃষ্টি করা। কারগিরি ও বৃত্তমিূলক প্রশক্ষিণরে মাধ্যমে জীবকিায়ন ও দক্ষ মানবসম্পদে পরণিত করে তাদরেকে আত্ম-র্কমসংস্থানরে যোগ্যতা সৃষ্টি করা।বদ্যিালয় বহর্ভিূত ও ঝরে পড়া শশিুদরে শক্ষিার বকিল্প সুযোগ সৃষ্টি করা। আগামী অর্থ বছরে বাসÍবায়নের জন্য বিএলপি প্রকল্প (৬৪জেলা) এর আওতায় কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৩০০(তিনশত)টি শিক্ষা কেন্দ্র চালু করা হবে যার মাধ্যমে ১৮০০০ জন (১৫-৪৫ বয়সী) নারী পুরুষকে সাক্ষরতা প্রদান করা হবে।তাছাড়াও মিঠামইন,ইটনা,নিকলী,তাড়াইল ও করিমগঞ্জ উপজেলায় পর্যায়ক্রমে  শিক্ষা কেন্দ্র চালু করা হবে। ইতিমধ্যেই প্রকল্পের ইও আই প্রক্রিয়া সমাপ্ত হয়েছে। প্রকল্পে এনজিও নির্বাচনের নিমিত্ত আর এফ পি প্রদানের পর জরিপের মাধ্যমে শিক্ষার্থী ,শিক্ষক ও কন্দ্রেঘর নির্বাচন করা হবে। মাস্টার ট্রেইনারদের মাধ্যমে সুপারভাইজার ও শিক্ষকদের বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ দিয়ে কর্মসূচি চালু করা হবে। প্রতিটি কেন্দ্রের প্রতিটি শিফটের জন্য ৩০জন করে শিক্ষার্থী নির্বাচন করা  হবে। প্রতিটি শিফটের জন্য একজন করে শিক্ষক এবং প্রতি ১৫টি কেন্দ্রের জন্য একজন করে সুপারভাইজার নির্বাচন করা হবে। প্রতি দুইটি শিফটের জন্য একটি ঘর তৈরি/নির্ধারণ করা হবে। নির্বাচিত মাস্টার ট্রেইনারের মাধ্যমে সুপারভাইজার ও শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। নির্বাচিত  উপজেলার সকল কেন্দ্র একযোগে  চালু হবে। ছয়মাস  ব্যাপী পাঠদান চলবে। পাঠদান শেষে শিক্ষার্থীদের মুল্যায়ন করা হবে।

 

৪. আমাদরে র্অজনসমূহ:

মানব উন্নয়নরে জন্য সাক্ষরতা উত্তর ও অব্যাহত শক্ষিা প্রকল্প-১ (পএিলসইিএইচড-ি১)  এর আওতায়  ৯টি উপজেলায় ১৩৫টি কেন্দ্রের মাধ্যমে প্রতি উপজেলায় ৯০০ জন হিসাবে অত্র জেলায় ৮১০০জন শিক্ষার্থীকে সাক্ষরতা ও জীবন দক্ষতা প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে যার র্অধকে নারী। এর মধ্যে প্রায় ৭২৯০জন শক্ষর্িাথী পএিলসইি দক্ষতা প্রশিক্ষণ কোর্স সমাপ্ত করেছেন । এ প্রকল্পরে আওতায় ৭২৯০ জন শক্ষর্িাথী (৩৭.%পুরুষ, ৪৩% নারী) আয়-সৃজনমূলক র্কমকাণ্ডে সম্পৃক্ত হয়ছে।ে ২৭০ জন ট্রডে প্রশক্ষিককে  প্রকল্পরে কাজে নয়িোগ করে তাদরে র্কম দক্ষতা বৃদ্ধি করা হয়ছে।ে উপানুষ্ঠানকি শিক্ষা র্কাযক্রমরে র্কাযকর বাস্তবায়নরে জন্য উপানুষ্ঠানকি শক্ষিার সকল স্তরে কারগিরি সহায়তা চহ্নিতি করণরে নমিত্তি কারগিরি র্কমকৌশল স্থাপনরে মাধ্যমে বভিন্নি র্পযায়ে বদ্যিমান উপযুক্ত সুবধিাভোগী এবং অংশীদারদরে মধ্যে সমাবশে ও আন্ত:যোগাযোগ প্রক্রিয়ায় উন্নয়ন ঘটানোর মাধ্যমে সমতাস্থাপক শক্ষিা কৌশলকে প্রাতষ্ঠিানকি রূপ দানরে ব্যবস্থা নয়োর মাধ্যমে পছিয়িে পড়া যুব এবং বয়স্কদরে জন্য শক্ষিা এবং প্রশক্ষিণরে সুযোগ সৃষ্টি করা হয়ছে।ে বেসরকারী সংস্থা কর্তৃক বাস্তবায়িত শিক্ষা কর্মসুচি  নিয়মিত পরিবীক্ষণ করা হয়েছে। এতে সাক্ষরতা কর্মসূচির প্রসার ও গ্রহণযোগ্যতা বেড়েছে।

ছবি


সংযুক্তি



Share with :

Facebook Twitter